করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বজুড়ে। ঘরবন্দি হয়ে পরছে জনসাধারন। আমাদের দেশেও চলছে অঘোষিত লকডাউন। বের হতে পারছে না কেউ। বার, রেস্তোরাঁ, ক্লাব, পার্ক, সমুদ্র সৈকত-সবই বন্ধ। বন্ধ হয়ে গেছে প্রেম, ভালোবাসাও। কিভাবে ঘরে থেকেই প্রেম করতে হবে তার অভিনব সব কৌশল ও পরামর্শ দিচ্ছে পশ্চিমা ডেটিং সাইটগুলো।

সরাসরি ‘বাহুবন্দি প্রেম’ বাদ দিয়ে ভার্চুয়াল প্রেমের প্রতি উৎসাহিত করছে তারা। কোনো কোনো সাইটের পরামর্শ- মেলামেশা, কাছে আসা ভুলে যান, প্রেম করুন অনলাইনে। কেউ বলছে, আসুন একসঙ্গে কোয়ারেন্টিনে যাই।

শীর্ষস্থানীয় ম্যাচমেকার ওকেকিউপিড টুইটারে বলছে, ‘এখন বারে বসে ডেটিং করার সময় নয়। ফেসটাইম, স্কাইপি, কল, আমাদের বার্তা পাঠানো অ্যাপ… সবই এখন বেশ রোমান্টিক।’

যুক্তরাষ্ট্রের ডেটিং সাইটগুলো এএফপিকে তাদের ব্যবহারকারীর সঠিক সংখ্যা দিতে অস্বীকার করেছে। তবে ফরাসি বার্তা সংস্থাটি বলছে, গত সপ্তাহ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্যগুলো লকডাউন শুরু হতেই ডেটিং সাইটগুলোর ব্যবহারকারীও কমে গেছে।

ডেটিং সাইট কফি মিট বাগেল কিছু ভিন্নমাত্রার ভার্চুয়াল প্রেম কৌশল আবিষ্কার করেছে। এর মধ্যে অনলাইন ভিডিও গেম ডেট অন্যতম। সাইটটির নির্বাহী প্রধান ডাউন ক্যাং বলেন, ‘বিকল হয়ে পড়া এই মুহূর্তে আমাদের বিকল্প কিছু ভাবতে হচ্ছে।’

সিএমবি একটি অনলাইন যৌথ সংলাপেরও আয়োজন করতে যাচ্ছে, যেটি এর আগে কখনও হয়নি। ওকেজুমার নামের একটি সাইট অবরুদ্ধ থাকা বৃদ্ধদের আকর্ষণ করতে তাদের ই-মেইলগুলোতে বার্তা পাঠাচ্ছে।

নতুন নতুন ডেটিং সাইটেরও আবির্ভাব ঘটছে। ‘কোয়ারেন্টিন টুগেদার’ নামের নতুন একটি সাইট তাদের স্লোগান দিয়েছে- ‘যখন আপনি ঘনিষ্ঠ হতে পারছেন না তখনও কাছাকাছি থাকুন।’

কম্পিউটার বিজ্ঞানের এক শিক্ষার্থী ই-মেইলে এএফপিকে বলেন, সামাজিক প্রতিবন্ধকতা আমাদেরকে নতুন ও পুরাতন সম্পর্ককে অনলাইন সংযোগের মাধ্যমে আরও জোরালো করছে। তিনি মনে করেন, এ সংকটময় পরিস্থিতিতে ওকেজুমারের মতো ডেটিং সাইটগুলো অর্থবহ নতুন সম্পর্ক গড়তে সাহায্য করছে।

কিভাবে বুঝবেন আপনি প্রেমে পড়েছেন

১. প্রেমে পড়লে ছেলে-মেয়ে সবারই শরীরের ভেতরে এক ধরনের অস্থিরতা সৃষ্টি হয়। যাকে ভালোবেসে ফেলেছেন তাকে দেখলে পেটে ও বুকের ভেতর এক অদ্ভুত চাপ অনুভূত হয়। তার সাথে কথা বলার সময় কিংবা তাকে ফোন করার আগে প্রচণ্ড আবেগের একটি অনুভূতির সৃষ্টি হয়। এই অনুভূতিকেই ইংরেজিতে বলা হয় ‘বাটারফ্লাইস ইন স্টোমাক’ বা পাকস্থলীতে প্রজাপতি। এই অনুভূতির কারণ ব্যাখ্যা করেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, নার্ভাস হয়ে যাওয়ার কারণে শরীর থেকে একটি বিশেষ হরমোন নিঃসৃত হয়। আর এই হরমোনের কারণে পাকস্থলীর এই অনুভূতি সৃষ্টি হয়।

২. হঠাৎ আনন্দের অনুভূতি: প্রেমে পড়লে মনের স্থিরতা থাকে না। হঠাৎ করেই মন ভালো হয়ে যায় এই সময়ে। বাঁধভাঙ্গা সেই হাসির অনুভূতিতে আপনি হয়তো নিজেও জানবেন না আপনি আনমনে হাসছেন। প্রিয় মানুষটির কথা মনে পড়লেই নিজের অজান্তেই আপনার মুখে হাসি ফুটে উঠবে। এই সময়ে নিজের ভেতরে একটি অন্যরকম ভালোলাগার অনুভূতি সৃষ্টি হয়। তখন আপনার কাছে সবকিছুই ভালো লাগবে।

৩. সহজেই মন খারাপ: প্রেমে পড়লে হঠাৎ করেই মন ভালো হওয়ার মতোই সহজেই মন খারাপ হয়ে যায়। পছন্দের মানুষটি ফোন না ধরলে কিংবা তার সাথে দেখা না হলে মনের ভেতর খারাপ লাগার অনুভূতি সৃষ্টি হয়। একটুখানি দূরত্বকেই তখন অবহেলা মনে হতে থাকে।

৪. সারাক্ষণ একজনকে নিয়েই ভাবা: কিছুটা দিবাস্বপ্ন দেখার মতোই পরিস্থিতি হয় প্রেমে পড়লে, চিন্তা ভাবনা সারাক্ষণ একজনকে ঘিরেই ঘুরপাক খায়। যাকে পছন্দ, আপনার মন কিছুতেই যেন তার কথা ভুলতে পারে না।

৫. শারীরিক আকর্ষণ অনুভব করা: যার প্রেমে পরেছেন তার প্রতি স্বাভাবিক ভাবেই শারীরিক আকর্ষণ বোধ করবেন আপনি। আর এ কারণেই তার সান্নিধ্য উপভোগ করবেন। তার পাশে বসা, হাতের একটু খানি ছোঁয়া কিংবা সামান্য ধাক্কাতেও শিহরিত হয়ে ওঠাই তখন স্বাভাবিক।

৬. হারিয়ে ফেলার ভয়: প্রেমে পড়লে প্রতিমুহূর্তে আপনার প্রিয় ব্যক্তিটিকে হারিয়ে ফেলার ভয় পাবেন। সর্বক্ষণ আপনার মনে এই সংশয় ঘুরপাক খাবে। আপনি এমন কিছু করবেন না বা চাইবেন না মানুষটি এমন কিছু করুক, যাতে আপনি তাকে হারিয়ে ফেলেন। এই হারানোর ভয় যদি আপনার মধ্যে থাকে, তাহলে সত্যি সত্যি আপনি প্রেমে পড়েছেন।

এবার তাহলে জেনে নিন সে-ও আপনাকে ভালবাসে কি না

১. আপনার শত্রু মানে তারও শত্রু। যখন দেখবেন কোনো কারণ ছাড়াই আপনার পছন্দের মানুষটি আপনার শত্রুকে নিজেরও শত্রু ভাবতে শুরু করেছে, শুধু আপনি তাকে পছন্দ করেন না বলে সেও তাকে ঘৃণা করতে শুরু করেছে, তখন বুঝবেন সে-ও আপনার প্রেমে পড়েছে।

২. খুব সাধারণ বিষয়েও সে আপনার প্রতি তার আবেগ প্রকাশ করবে, যাতে আপনি বুঝতে পারেন আপনার প্রতি সে কতটা দুর্বল।

৩. আপনার সঙ্গে দেখা হওয়ার কোনো সুযোগই সে হাতছাড়া করতে চায় না। যত ঝামেলাই থাকুক না কেন ঠিক সে কোনো না কোনো উপায় খুঁজে বের করে।

৪. যেকোনো সমস্যার কথা সবার আগে আপনাকে বলার চেষ্টা করে। হয়তো আপনি কোনো সমাধানই দিতে পারেন না, তবুও সে আপনাকে বলে শান্তি পায়।

৫. কেমন জীবনসঙ্গী চায় সেই বিষয়গুলো যদি বারবারই আপনাকে বলে এবং আপনার কাছ থেকে কোনো উত্তর আশা করে, তাহলে বুঝবেন সে আপনাকে বোঝাতে চাচ্ছে যে, তার আপনার মতোই সঙ্গী প্রয়োজন।

৬. আপনি অনেক আনন্দে থাকলেও সে বুঝতে পারে, আবার খুব কষ্টে থাকলেও সে বুঝতে পারে। আপনার সব আচরণ সে যখন আয়ত্ব করে ফেলছে, আর আপনিও তার কাছে কিছু লুকিয়ে রাখতে পারছেন না, বুঝবেন সে প্রেমে পড়েছে।

 

Write A Comment

15 + 7 =

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close